জ্ঞান অর্জনের জন্য বই পড়ার বিকল্প নেই

Views: 2

জ্ঞান অর্জনের বহু পন্থা রয়েছে। আমরা নিয়মিত কোনো না কনোভাবে শিখন প্রক্রিয়ার মধ্যে রয়েছি। বন্ধু-বান্ধব থেকে,পরিবার থেকে ,সমাজ থেকে, কোনো ঘটনা থেকে আবার হয়তো কখনো ভুল করে সেই ভুল থেকে শিক্ষা নিচ্ছি। এগুলো সবই অনানুষ্ঠানিক প্রক্রিয়ায় আমাদের অবচেতন মনে হচ্ছে। যা সাধারণত মায়ের কোল থেকে নিয়ে মৃত্যু পর্যন্ত চলমান থাকে।

তবে, এ শিখন প্রক্রিয়ার আমাদের মনোজগৎ কে ব্যাপক ভাবে প্রসারিত করেনা। আমাদের মধ্যে থেকে কোনো নতুনত্বের জন্ম হয়না। আমাদের মধ্যে থাকা বহুমুখী বৈশিষ্ট্যগুলোর প্রকাশ পায়না।

নতুন জ্ঞানের সৃষ্টি হয় পুরোনো জ্ঞানের চর্চার মাধ্যমে। আর সেই পুরনো জ্ঞান মেলে বইতে। আমাদের চিন্তার প্রসারণ ঘটে যখন মস্তিষ্কের উপর জোর প্রয়োগ করে কিছু শেখা হয়। আমরা যখন বই পড়ি তখন তা আমরা করি একরকম আমাদের প্রবৃত্তির বিরুদ্ধে গিয়ে। কারণ যখন বই পড়া হয় তখন আমাদের ব্রেনে অন্যান্য উত্তেজনামূলক কাজে তুলনায় ডোপামিন কম নিঃসরণ হয়। আর আমাদের প্রবৃত্তি আমাদের সেসব কাজের দিকে বেশি ধাবিত করে যাতে ডোপামিন নিঃসরণ বেশি হয়।

একটি গবেষণায় দেখা গেছে, একজন মানুষ বর্তমানে গড়ে ১৬ মিনিট পড়াশোনা করে। আর যারা খুব বেশি বই পড়ে তারা গড়ে ৪৮ মিনিট পড়াশোনা করে।

গবেষণার এই রিপোর্ট আপনাকে হয়তো হতাশ করবে। সমাজে বই পড়ুয়া লোকের সংখ্যা কমে যাচ্ছে। আর এটাও বলা ভুল হবেনা যে প্রকৃতপক্ষে এটাও একটা সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির কারণ। এই বিষয়টি আরো পরিষ্কার হবে বই পড়ার উপকারিতা কি তা জানলে।

বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে কেও চাইলে এ প্রশ্ন তুলতেই পারে যে, আমরা এখন প্রযুক্তিগত ভাবে উন্নত। বর্তমান সরকারের বদৌলতে সবার হাতে স্মার্টফোন। টাকা খরচা করে বই কিনতে হয়না।চাইলেই যেকোনো সময় যা কিছু জানা প্রয়োজন জেনে নিতে পারছি। তাহলে আবার কষ্ট করে বই পড়া কেন?
জ্বি অবশ্যই এর উত্তর আছে। সেজন্য আপনাকে একটু কষ্ট করে সামনে অবধি পড়তে হবে।
বই পড়লে কি কি উপকার হয়?
গবেষণায় দেখা গেছে বই পড়ার বহুমুখী উপকারিতা রয়েছে। তার মধ্যে প্রথমটি হলো:
১)বই পরলে বুদ্ধি বাড়ে।

২)শব্দ ভান্ডার বৃদ্ধি পায়। গবেষণায় এটাও পাওয়া গেছে যার শব্দভাণ্ডার যত বেশি সমৃদ্ধ তাই আইকিউ ততো বেশি। ৩) কোনোকিছুতে ফোকাস করার ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। যেকোনো কাজে অন্যদের তুলনায় বেশি মনোযোগী হতে পারে।
৪) বই আমাদের মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখে। নেতিবাচক চিন্তা থেকে আমাদের মুক্ত থাকতে সাহায্য করে। মানসিক চাপ কমে।

৫) বই আমাদের ধৈর্য শক্তি বাড়ায়। আমাদের শৃঙ্খলিত করে। কারণ, একটি বই যখন আমরা পড়ি তখন আমরা সেটা ধারাবাহিক ভাবে পড়ে শেষ করি।

৬) বই পরলে সৃজনশীলতা বাড়ে। সমস্যা সমাধানের সক্ষমতা বাড়ে। চিন্তা করার ক্ষমতা বাড়তে থাকে। মস্তিষ্ক সবসময় সক্রিয় থাকে।

৭) বই পড়লে অন্যের প্রতি দয়া বা সহানুভূতির বৃদ্ধি হয়। কারণ যারা বই পড়ে তারা অন্যের চোখ দিয়ে পৃথিবী দেখার চেষ্টা করে। অন্যের দৃষ্টিভঙ্গি বিবেচনা করে। যা কারো মধ্যে থাকা সহানুভূতিশীলতা বৃদ্ধি করে এবং এর ফলে সামাজিক আন্তসম্পর্ক বৃদ্ধি পায়।

৮) আবার যারা কাগজের বই পরে তাদে বোধগম্য শক্তি খুব বেশি হয় তারা বই পড়ার পর তা বেশি সুন্দরভাবে ব্যাখ্যা করতে ই-বুক পড়ুয়াদের তুলনায়।

তাছাড়া, বই পড়ার আধুনিক ধারণা বলে, আমাদের বই পড়া উচিত পৃথিবী কিভাবে চলে তা জানার জন্য। অর্থাৎ, পৃথিবীর আর্থ-সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় ইত্যাদি বিষয় কিভাবে কাজ করে তা বোঝার জন্য।

ইতিহাসে যারা আমাদের কাছে মহানায়ক হিসেবে পরিচিত তারাও ‘বই পড়া’কে অগ্রাহ্য করেননি বরং বই পড়ার ব্যাপারে তারা অগ্রগামী ছিলো।

নেপোলিয়ন বলতেন, ‘অন্তত ষাট হাজার বই সঙ্গে না থাকলে’ জীবন অচল।

মাও সেতুং বলতেন, ‘পড়, পড় এবং পড়।

প্রমথ চৌধুরী তার বই পড়া প্রবন্ধে লিখেছেন,দেহের মৃত্যুর রেজিস্টারি রাখা হয়, আত্মার মৃত্যুর হয় না।

বই পড়ার মাধ্যমে আমাদের আত্মা তৃপ্ত হয়। এটা তার চাহিদা। যখন আত্মার এই চাহিদা না মেটে তখনই তার মৃত্যু হয়। এজন্যই হয়তো স্পিনোজা বলেছেন,

‘ভালো খাদ্য বস্তু পেট ভরে কিন্ত ভাল বই

মানুষের আত্মাকে পরিতৃপ্ত করে।’

ফ্রাৎস কাফকা বলেছেন, ‘আমাদের আত্মার মাঝে যে জমাট বাধা সমুদ্র সেই সমুদ্রের বরফ ভাঙার কুঠার হলো বই।’

আমাদের দেশের বিখ্যাত ভাষাবিজ্ঞানী ডক্টর মুহম্মদ শহীদুল্লাহ বলেছেন, ‘জীবনে তিনটি জিনিসের প্রয়োজন—বই, বই এবং বই।’

দুঃখজনক হলেও সত্য, আমাদের দেশে ‘বই পড়া’ নিয়ে একটা সুপরিচিত ধারণা বিদ্যমান যে, বই পড়তে হয় চাকুরির জন্য। আর বাস্তবতাও তাই, শিশু ছোটোবেলা থেকে এটা শুনেঅ বড় হয় যে, তাকে বড় হয়ে ডাক্তার, পাইলট, ইঞ্জিনিয়ার হতে হবে তাই তাকে বই পড়তে হবে। পরিক্ষার খাতায় ভালো নাম্বার পেতে হবে।

এতে করে সেই শিশুটির মধ্যে এই ধারণা গেথে যায় যে, তাকে ভালো নাম্বারের জন্য বই পড়তে হবে। একটা সময় গিয়ে সে মেশিনের মতো একের পর এক বই গলাধঃকরণ করলেও তা তার মেধা ও মননকে পরিশুদ্ধ করেনা। বইয়ের শিক্ষা তার আচরণে ফুটে উঠেনা। আর তার মধ্যে একাডেমিক কারিকুলামের বাহিরে গিয়ে সাহিত্য চর্চা করার আগ্রহ জাগে না।

যার কারণেই হয়তো আজ আমাদের তরুণ সমাজ বই পড়ার ব্যাপারে উদাসীন। তাদের মনোযোগের সক্ষমতা দিন দিন কমে যাচ্ছে। তারা সৃজনশীল চিন্তায় পিছিয়ে পরছে। তাদের মধ্যে সহানুভূতিশীলতা হ্রাস পাচ্ছে। যাদেরকে নিয়ে আগামীর সোনার বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখা হচ্ছে তারাই হয়তো হতে চলেছে জ্ঞানহীন, অজ্ঞ এক প্রজন্ম।

এর পেছনে অনেকগুলো বাহ্যিক কারণকে দায়ী করা যায়। যার মধ্যে একটি বিকৃত সামাজিক মাধ্যমগুলোর প্রতি আসক্তি। আজ তরুণ, যুবসমাজ জাতির প্রতি তাদের দায়িত্ব-কর্তব্য ভুলে এক অন্ধ প্রতিযোগিতায় নেমেছে।

তরুণ-যুব সমাজের এই প্রতিকূল পরিস্থিতির মোকাবিলায় তাদেরকে বই পড়ানোর ব্যাপারে উৎসাহিত করার কনো বিকল্প নেই। সেজন্য বহুমুখী কর্মপরিকল্পনা নেয়া যেতে পারে। প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের একাডেমিক বই পড়ার চাপ কমিয়ে এর পাশাপাশি অন্যান্য বই (ফিকশন অথবা নন-ফিকশন হতে পারে) পড়ানোর জন্য সাপ্তাহিক, মাসিক পরিকল্পনা নেয়া যেতে পারে। সেই সাথে প্রতিটি গ্রামে-মহল্লায় একটি করে লাইব্রেরি তৈরি করে তাদের মধ্যে বই পড়ার আগ্রহ তৈরি করা যেতে পারে। এলাকাভিত্তিক সংগঠন তৈরি করা যেতে পারে যা তরুণ ও যুবকদের বুদ্ধিবৃত্তিক চিন্তার বিকাশ ঘটাবে। দক্ষতা অর্জনে সাহায্য করবে।

পরিশেষে বলা যায়, আগামীর বাংলাদেশ গড়ার যে স্বপ্ন আমরা দেখি, সে স্বপ্ন পূরণে অবশ্যই প্রয়োজন একদল জ্ঞান ও দক্ষতাসম্পন্ন তরুণ যারা মেধা ও মননে হবে নৈতিকতা সম্পন্ন, দৃঢ়-প্রতিজ্ঞ ও অঙ্গিকারবদ্ধ। তাই, বই পড়ার মাধ্যমেই হতে পারে তাদের নৈতিক চিন্তার বিকাশ। যার রেস ধরেই হয়তো তারা আগামী দিনে জাতির জন্য সুফল বয়ে আনবে।

লেখক: জুনায়েদ মাসুদ, শিক্ষার্থী, শিক্ষা ও গবেষণা ইন্সটিটিউট, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা।

Zeen is a next generation WordPress theme. It’s powerful, beautifully designed and comes with everything you need to engage your visitors and increase conversions.

More Stories
পশ্চিমবঙ্গের ডেঙ্গু অভিযান